মার্কেট ট্রেন্ড, ট্রেন্ড লাইন, ট্রেন্ডের গুরুত্ব

মার্কেট ট্রেন্ড, ট্রেন্ড লাইন, ট্রেন্ডের গুরুত্ব।
**************************
ট্রেন্ড ইজ ইউর ফ্রেন্ড এটা আমরা সবাই জানি। মার্কেট ট্রেন্ড ফলো না করার কারণেই শত শত নতুন ট্রেডারের একাউন্ট জিরো হয়। তাই আসুন আজকে এটা নিয়ে কিছু আলোচনা করি।
ট্রেন্ড কি?
******
আমরা ভাল করেই জানি যে ফরেক্স এ আমরা দুটি মূদ্রাজোড়া Currency Pair ব্যবহার করি। যেমন EUR/USD, এখানে দুইটি পেয়ারে দুইটি দেশের অর্থনীতি দেশের অবস্থা এগুলার কারণে মুদ্রা শক্তিশালী বা দূর্বল হয়। একটা বাস্তব কথা হল কোন দেশের ফান্ডামেন্টাল নিউজেই কিন্তু সে দেশের মূদ্রাকে দূর্বল বা শক্তিশালী করে থাকে। কোন কোন ফান্ডামেন্টাল নিউজের স্থায়িত্ব ঘন্টা থেকে একদিন কার্যকর থাকে। আর কোন নিউজ মাসের পর মাসও তাতে প্রভাব ফেলতে পারে।
কিন্তু ফান্ডামেন্টাল নিউজের কারণে একদিনেই মার্কেট কিন্তু আপ বা ডাউন হয়ে যায়না। অনেক সময় দেখা গেল একটি নিউজের ইমপ্যাক্ট ২-৩ দিন পর থেকে শুরু হয়ে মাসব্যাপী চলতেছে। এই যে মার্কেট আপ বা ডাউনে যাচ্ছে এটা কিন্তু টেকনিক্যালিই যায়। মুভমেন্টটা হচ্ছে ফান্ডামেন্টালী কিন্তু সেটা টেকনিক্যাল ওয়েতেই যাবে। তাই যারা এক্সপার্ট এবং সফল ট্রেডার তারা কিন্তু ফান্ডামেন্টাল নিউজের সাথে সাথে টেকনিক্যাল ব্যাপারগুলাও কিন্তু মেনে চলেন। মার্কেটে যখন একটা ট্রেন্ড শুরু হয় তখন সেটা চলতেই থাকে। একসময় ট্রেন্ডটা দূর্বল হয়ে এবার রিভার্সাল মুভ শুরু করে।
একজন সফল ট্রেডার হতে হলে আপনাকে অবশ্যই অবশ্যই মার্কেট ট্রেন্ড বুঝতে হবে। কারণ ট্রেন্ড এর বিপরীতে আপনি কখনো টিকে থাকতে পারবেননা। ট্রেন্ডের সাথেই আপনাকে থাকতে হবে।
ট্রেন্ড ৩ প্রকার:
১. আপট্রেন্ড
২. ডাউনট্রেন্ড
৩. সাইডওয়ে ট্রেন্ড
মার্কেট এর উর্দ্ধমুখি চলাটাকে Uptrend বলে। মার্কেট নিম্মমুখি চলাটাকে ডাউনট্রেন্ড বলে। আর মার্কেট একটা নির্দিষ্ট জায়গায় রেঞ্জ করলে সেটাকে সাইডওয়ে ট্রেন্ড বলে।
১. আপট্রেন্ড: দুটি বা তিনটি সাপোর্ট কে যখন লাইন টেনে নিলে উপরের দিকে নির্দেশনা পাওয়া যায় তখন বুঝতে হবে মার্কেট আপট্রেন্ডে আছে। তিনটি সাপোর্ট একসাথে মিললেই আপট্রেন্ডের নিশ্চয়তা পাওয়া যায়।
২. ডাউনট্রেন্ড: দুটি বা তিনটি রেজিস্টান্সকে কে যখন লাইন টেনে নিলে নিচের দিকে নির্দেশনা পাওয়া যায় তখন বুঝতে হবে মার্কেট ডাউনট্রেন্ডে আছে। তিনটি রেজিস্টান্স লেভেল একসাথে মিললেই ডাউনট্রেন্ডের নিশ্চয়তা পাওয়া যায়।
৩. সাইডওয়ে ট্রেন্ড আসলে কোন ট্রেন্ড না। মার্কেট একটা নির্দিষ্ট পিপের মধ্যে ঘুরাঘুরি করলেই সেটা সাইডওয়ে মার্কেট বলে। এটা স্কাল্পারদের প্রচুর প্রফিট করতে সাহায্য করে।
আমার উপরের চিত্রটা লক্ষ করলেই বুঝবেন কিভাবে ট্রেন্ড আঁকতে হয়। সিস্টেম মত ট্রেন্ড আঁকবেন। নিজের মন মত জোর করে ট্রেন্ড আঁকলে কোন ফলই হবেনা। খাড়া উপরের দিকে বা নিচের দিকে স্পাইকগুলা কোন ট্রেন্ড নির্দেশনা দেয়না। ট্রেন্ড এ নিউজ স্পাইকের কোন গুরুত্ব নেই। তাই ট্রেন্ড লাইন আকার সময় নিজউ ইফেক্ট এর লম্বা লম্বা বাঁশ এর মত স্পাইকগুলা ধরার দরকার নেই। এগুলা কোন ট্রেন্ডের অংশনা এগুলা ট্রেডারদের বাঁশ দেয়ার ক্যান্ডেল। গতকালই দেখছেন আশা করি এমন কিছু বাঁশ। খেয়েছেনও ও অনেকে।

তো আমি কিভাবে ট্রেন্ডের সুবিধা গ্রহণ করব?
*****************************
যারা বুদ্ধিমান তারা ট্রেন্ড থেকেই কিন্তু প্রফিট নেয় ট্রেন্ডের সাথে থেকেই। আপট্রেন্ডে বাই ছাড়া কখনো সেল দিবেনা তারা। ডাউনট্রেন্ডে সেল ছাড়া বাই কখনো দিবেনা তারা। আর স্কাল্পাররা ছাড়া লংটার্ম ট্রেডাররা কখনো সাইডওয়েতে ট্রেড পছন্দ করেননা।
ট্রেন্ড খুজতে হলে আপনাকে অবশ্যই হায়ার টাইমফ্রেমেই খুজতে হবে। লোয়ার টাইমফ্রেমে আপনি ট্রেন্ড এর কনফার্মেশন পাবেননা।
এখন আসেন ট্রেন্ড এ এন্ট্রি কিভাবে নিবেন? হা সেটা কিন্তু আসলে আপনাকে টেকনিক্যালিই বুঝত হবে। নরমালি আপট্রেন্ডে সাপোর্ট থেকেই এন্ট্রি নেয়া হয়। আর ডাউনট্রেন্ডে রেজিস্টান্স থেকেই এন্ট্রি নেয়া হয়। তার সাথে আপনাকে সাপোট রেজিস্টান্স পিভট, ফিবোনাক্কি রিট্রেসমেন্ট এগুলা অবশ্যই বুঝতে হবে।
আমাদের অনেকেরই একটা অভ্যাস আছে যে মার্কেট কিছুটা আপ হলেই সেল দিয়ে দেই। আর কিছুটা ডাউন হলেই বাই দিয়ে দেই। এটা কিন্তু ট্রেন্ডি মার্কেটে বিপদজনক যদি আপনার এন্ট্রিটা বিপরীতে পড়ে যায়। আপট্রেন্ডে কখনো সেল দেয়ার চেষ্টা করবেননা। ডাউনট্রেন্ডে কখনো বাই দেয়ার চেষ্টা করবেননা।
ট্রেন্ড লাইন ব্রেকআপ
*************
একটা ট্রেন্ড কিন্তু একসময় তার শক্তি হারিয়ে দূর্বল হয়ে যায়। তখন সে রিভার্স শুরু করে। তাই ট্রেন্ড এর শেষ দিকে আর ট্রেডে না থাকাই ভাল। ট্রেন্ড কখন রিভার্স করবে সেটা বলা মুশকিল। কারণ মার্কেট আগামী ৫ মিনিট পর কই যাবে এটাতো আমরা কেউই বলতে পারিনা। সেটা সম্ভবও না।
তাই অনেকে অনেক সিস্টেম এপ্লাই করে কিছু কনফার্মেশন পেয়ে সেটা বুঝে যায়।
মনে করেন মার্কেট একটা নির্দিষ্ট গতিতে চলার পর তার ট্রেন্ড লাইনে এসে স্থির হয়ে আছে এখন দুটি ব্যাপার ঘটতে পারে এটা আবার তার নির্দিষ্ট ট্রেন্ড এ চলা শুরু করতে পারে অথবা পুলব্যাক করতে পারে। এখানে দুটিরই সম্ভাবনা আছে। এক্ষেত্রে আপনাকে হিস্টোরী দেখে জাষ্টিফাই করতে হবে এটা কোন আগের স্ট্রং সাপোর্ট বা রেজিস্টান্স এ আছে কিনা। যদি থাকে তাহলে সেটা ব্রেক করার সম্ভাবনাই বেশি। হয়ত ট্রেন্ড শেষ হয়ে এবার রিভার্সাল শুরু হতে যাচ্ছে। সুতরাং এই জায়গায় সতর্কতা অনেক দরকার।
একটা কথা মনে রাখবেন ফরেক্স এ নিজের একটা সিস্টেম বানাতেই হবে। সেটাকে দিন দিন ডেভেলপ করতেই। শুধু ট্রেন্ডলাইন আর সাপোর্ট রেজিস্টান্স দিয়ে একটি সফল সিস্টেম বানাতে পারেন।
নতুন যারা মার্কেটে আসে তারা শিখতে চায়না। তারা এটা বুঝেনা যে এই মার্কেট এর শিখার কোন বিকল্প নেই। আমাদের প্রথম অবস্থায় বাংলাভাষায় কোন সুযোগইতো ছিলনা শেখার। বর্তমানে কতসাইট আছে বাংলায়। অনেক ট্রেডারই তাদের ট্রেডিং নলেজ শেয়ার করছে। মানুষের মনমানসিকতা দিন দিন উদার হচ্ছে। আমরা জানার অভাবে লস করেছি। লস করে শিখেছি। আপনারা কেন লস করবেন এমন সুবর্ণ সময়ে?
জাস্ট সিম্পল একটা সিস্টেমে চলেন। নিত্য নতুন স্ট্রাটেজি আর সিস্টেম বানাবেননা। একটাকেই ডেভেলপ করেন। মানি ম্যানেজমেন্ট মানেন। সফল হবেনই।
আমি এগুলা আপনাদের উপকারের জন্য দিচ্ছিন। আমার নিজের উপকারের জন্যই। আমি এগুলা লিখি আর আমার জানার ক্ষেত্রটা আরো সমৃদ্ধ হচ্ছে। দিনের নির্দিষ্ট একটা সময় টার্মিনালের সামনে থাকেন। বাকি সময় শুধু স্টাডি করেন। অনলাইনে হাজার হাজার সাইট আছে। ইউটিউবে ভিডিও টিউটোরিয়াল এর অভাব নেই।
শুভকামণা রইল সবার জন্য। শুভ হোক ফরেক্স জীবন। সফলতায় ভরে উঠুক।

ট্রেন্ড সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে পারবেন এই ভিডিও টিউটোরিয়ালটি দেখলে।

COUNTER STATS
COUNTER STATS

Comments

comments

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *